What is the PROOF that ANGELS are made of Light???

Non believer asks, If angels are made of light, why we don’t see them?


I ask, How many kinds of Light do you observe according to Science? Only One type among many!


Here is an spectrum of visible Light & non visible Light…

At the time of revealing Quran people used to believe that all lights are visible except the light of Angel. But not today! we know the majority of lights are non visible!

Now let see, Does the Quran say that angels are made of light??

In the Quran, there is no clear Sentence that Angels are made of light. But there is Hint.

That Hint is so strong that has extreme Scientific validity what we are gonna test.

In Quran it is said,

The angels and the Spirit ascend to Him(to the creator) during a Day the extent of which is fifty thousand years what you count.” -(quran 70:04)

Here what is indicated by Quran is that When the Angels are in to their velocity & experience 1 day that will be equivalent to 50,000 years to Human as frame of reference according to Special Theory Of Relativity.


Let’s test the math with Time Dialation Law of Albert Einstein if it’s truly possible!



ΔT.= time experienced by angel ( 1day)

ΔT = time measured by Human ( 50000 lunar years x 12 lunar months/lunar year x 27.321661 days/ lunar months)

v = velocity of angel ( which we’re going to calculate)

c = normal light speed ( 299792.458 km/s)

Here we calculate…. angels velocity “v” 

So, we’ve found Angels velocity is 299792.4579999994km/s..

which is comparable to light speed 299792.458km/s

Einstein Explained, in space nothing can reach the velocity of Light ( except light itself)

but The Angels can reach it comfortably.. So, the Angels has to be made of Light.. 🙂


Now let’s see the clear evidence from Hadeeth,

Sahih Muslim – Hadith No: 7134

“ Aiisha reported that Allah’s messenger (may peace be upon him) said, Angels are made of light, Jins are made from spark of Smokeless fire & Adam was born he was defined in Quran (from clay)” – muslim 2196 & also Sahih Muslim vol-7, Book of zuhd & softening of the heart, hadeeth 7134.

So, Scientifically & religiously there’s no difficulties to tell that Angels are made of light!

[We, muslims believed without experimenting what Allah’s apostle said & what Quran said 1400 years ago! & later on our belief becomes fact! & we show it to non believers when the doubts. Cause otherwise a True Muslim doesn’t need proofs!]

thank you 🙂

Advertisements

7 STATES OF MATTER HAS BEEN EXPLAINED 

Besides Solid, liquid & gas,  Many of us are known about Plasma as the fourth state of matter! But is this end of the list so early? ANSWER IS A ” BIG NO”
There are still Three more states of matters we have observed in the vast ocean of the Universe Which we weren’t  taught in College!! Though it will be quite tricky to get them for instance!
In physics, a state of matter is one of the distinct forms that matter takes on. 

The seven states are, 1. Solid, 2. Liquid, 3. Gas, 4. Plasma, 5 Quark Gluon Plasma, 6. Bose-Einstein Condesates, 7. Degenerate matter.
As we do not need to introduce the first 3, may we start from the 4th instead?

shawoneric.wordpress.com
Plasma Globe

A plasma is a hot ionized gas consisting of approximately equal numbers of positively charged ions and negatively charged electrons. The characteristics of plasmas are significantly different from those of ordinary neutral gases so that plasmas are considered a distinct “fourth state of matter.”
Plasma can be found in the Sun, Strokes of Lightning, Neon Light and so on!

Did you know?
Lightening is 5 times Hotter than the Suns Surface?

plasma From Lightening

The temperature of plasma in Suns Surface is 6000 Kelvin & The stroke of Lightening bears 30,000 Kelvin of Plasma! Isn’t it shocking?
But remember that just above the Suns Surface, the atmosphere exceeded up to 6,00,000 Kelvin  & in the center of the Sun the plasma temperature is 15 million to 27 million Kelvin.
A Bose–Einstein condensate (BEC) is a state of matter of a dilute gas of bosons cooled to temperatures very close to absolute zero (that is, very near 0 K or−273.15 °C). Under such conditions, a large fraction of bosons occupy the lowest quantum state, at which point macroscopic quantum phenomena become apparent.
& At That temperature All the Velocity of Electrons goes nearly Stunned!

It was discovered by Sattandranath Bose & Einstein Moderated the papers between  1924-1925.

Quark Gluon Plasma  existed few seconds later after the Big Bang occurred. Do you know in that moment, there was not a single electeon in those atoms rotating. The first electron started rrevolving the neucleous around 300,000 years after the Big Bang. Isn’t it strange? 

Anyway, after some moments after the big bang quantum particles were in a epoch of Quarks & Gluons. Those are incompleted atoms no doubts. Scientists of CERN tested those states in Large Hydron Collider & confirmed there possible existance.

Degenerate Matters
are found specially in Neutron stars! The atmospheric temperatures are so high in Neutron stars that the electrons & neutrons come out from the atoms & continuously shoots Neutrons outside the star. That’s why they are called Neutron Stars. When yo are reading this topic from shawoneric.wordpress.com millions & billions Neutrino has crossed through your body without being informed by you. But did you notice? I said Neutrino not Neutron! There is a difference,  right? :p

What is Antimatter? Is it really a mysterious Particle of the Universe?

Umm! Not by it’s Formation. It’s just like a common particle with opposite charge. Whereas a Hidrogen Atom can be formed as a positive charged particle, there an Anti-Hydrogen can be formed as a negetive charged particle.

But Ofcourse, IT’S A MYSTERY! The mystery is, big bang should have created equal antimatters & matters! but why?? & where are they?

As you are made of normal Matters, What happens if there is an another verse of you made of antimatters & both shakes your hands together frequently ????

 

 B-a-n-g!!!!

“YOU’LL BE BOTH VANISHED FROM THE UNIVERSE WITH HALF OF THE PLANET!!!”

Because,

When a matter and antimatter collapses with each other both of them turns into pure energy & causes big explotion!

One gram of antimatter can produce as much energy as the Atom bomb dropped in Hiroshima!

” So, When MATTER AND ANTIMATTER COLLIDES, both becomes invisible and also turns into ENERGY,

that means, IF YOU WANT TO CREATE SOMETHING OUT OF NOTHING, there will be two copies, one of them PARTICLE and another ANTIPARTICLE, right?”

So, when the big bang occured from a single point, there must be half of matters & other half of antimatters!

Though there are still question remains, After they are created, why those Matters & Antimatters didn’t collide each other again & why the universe didn’t invincible? 

Hence,  Where are they now? Why we can’t see them?

Well, Scientists are silent in that point! Nobody knows for sure, where are those antimatters! They say, May be….!  May be… there are Galaxies far distant from the Horizon is completely made of Antimatters? 

Cern is trying to make antimatters in lab. But do you know?

To create One gram of Antimatter you need MORE THAN 60 Trillion dollars!! Almost all the money of the earth!” 

NOT ONLY THAT… 

Creating Antimatter is so hard that, it annihilates with anything on the earth close to it! So generally after creating,  you can not put it somewhere or float it in vaccum any longer!
Do you know,  A banana ( high in quality of potassium, 40)  produces AN ANTIMATTER in every 75 minutes? 

CERN made an Antihydrogen and could save it just for 15 seconds! 

Isn’t it too dangerous to create in lab?

It could be,  but You don’t worry! As much Antimatter was created on earth can not even make a cup of tea! Theee!! 😀

Are there really any copies of me in parallel universes?


Parallel universes are the concept of Multiverses. It’s an hypothesis of physics, cosmology, astrology, philosophy,  religion &  also very famous topic for science fiction.

Multiverse as a word was used by Willium James in 1895. Laterly it became so popular idea as “Baby Universes” “Parallel Universes” etc. Some part of these theories suggest that we may have many copies of us in other Parallel univeses! But those universes are little bit different. you don’t do the exactly samething you do in other universes!

Though still there are various arguments about these Universes cause we can’t really test them. But suppose the theory is okay.

But is it really possible that we have so many copies?

Cause, if those copies don’t do the exact samething I do, that means we like to do something different!

that’s why my father might not get married the same girl, my mother.. if those worlds are little bit different, then might be ADAM never met EVE, it’s possible.

Or Amaeba never got his partner as the first born animal in the earth, who knows!

Theory suggests that,

may be the laws of physics are not as same as us there. May be light speed is also little bit different there!

What do you mean by little bit different? 

A tiny tiny tiny little bit changes in the formation earlier of the universe CAN change the whole history of it… or delete the history of it. Nothing will be as same as before. The outcome will be whlole new version.


According to those theories,  this is impossible to have exact same copies! Similiar or identical faces can be found in other universes too, that’s definitely not me!



But,  yes ofcourse, May be there are really some copies of you, that part you have to leave for the Creator! Nothing is impossible for the creator & God’s wills!

 

So, what do you think? Do you believe that in another universes, you are a super star?

It feels good, right? 😀

কালো জাদু

images (62)
Enter a caption

এক গ্লাস পানি খেয়ে শুয়ে পরলাম… ….
__ক্লান্ত অবসার্ত শরীর শোয়া মাত্রই ঘুম নেমে এল চোখে!

মাঝে মাঝে না এমন মনে হয় শরীরটা বিছানার সাথে পার্মানেন্ট ফিক্সড হয়ে গেছে। আর কোনদিন বিছানা থেকে উঠতে পারবনা। কখনও মনে হয়, আমার ঘরের চারপাশে কোনও দেয়াল নেই। আমার বিছানাটা একটা মাঠের মধ্যে পড়ে আছে। অন্ধকারে আমার দিকে কেউ তাকিয়ে আছে টরটর করে। যার চোখগুলো লাল, কোনও সরীসৃপের মত, এখনি আমার উপর উপর ঝাপিয়ে পরবে, মুখের ভিতর থেকে কাল কুঁচকুঁচে জিব বের হয়ে আসবে এখনি……আর আমার মুখের সামনে লকলক করবে। যাই হোক যা বলছিলাম,

শোয়া মাত্রই ঘুমের মধ্যে জেগে উঠলাম আমি। পা’গুলো জড়ো করে নিয়ে বিছানায় উঠে বসলাম। আমি জানি আমি এখনও ঘুমাচ্ছি আমি, ভারী নিঃশ্বাসের আওয়াজ পাচ্ছি, গভীর ঘুম।

টেবিলের উপর এখনও গ্লাসটা দেখা যাচ্ছে। একটা এক্সপেরিমেন্ট করা যাক। আমি এখন এটাকে শুন্যে ভাসিয়ে আমার কাছে নিয়ে আসার চেষ্টা করব। এবং ঘুম থেকে উঠে দেখব সেটা আমার বিছানার কাছে চলে এসেছে, এটা কখনই হতে পারেনা। তবু দেখা যাক না, কি হতে পারে!!!! প্রকৃতি আমাদের সাথে অনেক রহস্যময়য় খেলাইতো খেলে। কিন্তু সে তার রহস্যকে অবিশ্বাস করারও একটা রাস্তা খোলা রাখে। মানুষ ঐ একটা রাস্তার দিকে অগ্রসর হবে, হাজারটা প্রমাণ বাদ দিয়ে। গ্লাসটা যদি আমার কাছে সত্যি সত্যি এসে থাকে, তাহলে এর পিছনের ব্যাখ্যাটা হবে এই যে আমি যখন ঘুমিয়ে ছিলাম তখন কেউ গ্লাসটা আমার কাছে মনের ভুলে রেখে গেছে। তবু আশার কথা এইযে সবাই দাওয়াত খেতে বাহিরে গেছে আমাকে রেখে ।

আমি গ্লাসটাকে আমার চোখের ইশারায় টানতে লাগলাম আমার কাছে। গ্লাসটা নড়লনা পর্যন্ত, নড়া উচিত ছিল। কারন স্বপ্নটা এখন আমার নিয়ন্ত্রনে, আমি যে ভাবে চাইব স্বপ্নটাকে সাজাতে পারি কিছু সময়ের জন্য, কারন আমি জানি এটা সপ্ন । তারপর স্বপ্নটা মুহূর্তেই জটিল হয়ে যাবে, আর আমার করার কিছুই থাকবেনা। আমার বুকে ব্যাথা করতে লাগল। মনে হল কেউ বুকের উপর দাড়িয়ে পড়েছে। শ্বাস নিতেও পারছিনা। আমার নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে গেছে প্রায়। পুরো শক্তিটা দিয়েছিলাম চোখের উপর। ধিরে ধিরে চোখে অসহনীয় ব্যথা শুরু হল। আমি হাল ছাড়লাম না। মনে হল ঘুমটা ভেঙ্গে যেতে চাইছে। কিন্তু আমার ঘুম কিছুতেই ভাঙা চলবেনা।

ঠিক যখন গ্লাসটা নড়ছে বলে মনে হল, আমার চোখও গরম হয়ে যেতে লাগল। মনে হচ্ছে ভিতরে রক্তের দলা জমতে শুরু করেছে। চোখ ফেটে এখনি বুঝি একদলা রক্ত ছিটকে বেরিয়ে আসবে। আমি আর নিঃশ্বাস নিতে পারছিলাম না। যন্ত্রণায় ছটফট করছি। আমি জানি একটা বাজে কাজ করতে গিয়ে শরীরের অনেক বড় ক্ষতি করে ফেলছি। কিন্তু এখন আর আমার কিছু করার নেই। কখনও কখনও জেদের পরিমাণ বাড়তে বাড়তে এমন অবস্থায় আসে যে, মস্তিস্ক পুরো সিস্টেম হেং করে ফেলে, এবং টাস্ক কমপ্লিট না করে স্বাভাবিক হতে পারেনা । এখনও তাই হয়েছে।

আমার ঘুম শেষ পর্যন্ত ভেঙে গেল। আমি বুক চেপে ধরে অনেকক্ষণ হু হু করে কাঁদলাম। মনে হচ্ছিল আমি মরে যাচ্ছি…
মাথার কাছে দেয়াল ঘড়িটা টিক টিক করে বেজে চলেছে। লাথু দিয়ে ফুটায়ে দিতে ইচ্ছা করছে। গ্লাসটা আমার কাছে আনতে পারিনি। গ্লাসটা টেবিলের উপর-ই আছে। ঠিক যেমন ছিল।

কলিংবেল বাজছে, আমি গেট খুলে দিলাম। ওরা শপিংও করেছে বোধয়। আমার বোনটাকে খুব সুন্দর লাগছে, কাজল দিয়েছে কি!! ওর চোখে চোখ পড়তেই ও আর্তনাদ করে উঠল!!?

“তোর চোখে কি হয়েছে!! তোর চোখ পোঁড়া কেন? ” :O

এক মিনিটের জন্য মনে হল, আমার পৃথিবী থেমে গেল। আমার পা ভারী হয়ে আসছে। আমি আর দাড়িয়ে থাকতে পারছিনা। আমি সেতুর দিকে তাকিয়ে থাকলাম, অসহায় ভঙ্গিতে।

যাই হোক ব্যাপারটা খুব সিরিয়াস ছিলনা।
আয়নার সামনে দাড়িয়ে দেখলাম আমার চোখের উপর দিয়ে বাম থেকে ডানে কপাল হয়ে একটা লম্বা পোড়া দাগ। আম্মু বলল মাথার উপর দিয়ে একটা পোকা হেটে গেছে। নাম মনে নেই। ওটা নাকি যেখান দিয়ে যায়, ঐ জায়গার চামড়া পুড়ে যায়। আমি আমার ঘরে ফিরে এলাম। শুতে গিয়ে দেখি বিছানার উপরটা একদম ভেজা, একটা গ্লাস উপুর হয়ে আছে। কি জানি আমার বোন হয়ত ফেলে গেছে পানি। কিংবা কোনও বিড়াল টেবিল পার হয়ে যাবার সময় গ্লাসটা ফেলে দিয়েছে।

হতেইতো পারে, কিন্তু তখন আমার স্বপ্নের কথা একদম-ই মনে ছিলনা। মনে পড়লে হার্ট-এটাক হয়ে যেত মাইরি 😀

Black Magic & The First Creation Of Zombie In Real

“ব্ল্যাক ম্যাজিকের উত্থান এবং Zombie সৃষ্টি প্রথমবার”

খুব সম্ভবত ১৪০০ থেকে ১৬০০ শতাব্দীর মধ্যে White Magic নিয়ে খুব Study করা হয়েছিল।(যদিও ম্যাজিক ব্যাপারটা সৃষ্টি হয় প্রথম ব্যাবিলনে হারুত এবং মারুত-কে ঘিরে)
কিন্তু সেটা খুব দ্রুত বন্ধ হয়ে যায় যখন Black Magic এর উত্থান ভালভাবে শুরু হল।

বিভিন্ন ধর্মে Black Magic নিয়ে কোন না কোন ঘটনার উল্লেখ থাকায় সেটা বহুল আলোচিত হতে থাকে, এবং গোপনে অনেকেই সেটা শুরু করে দেয়। Black Magic এর Origin একেবারে #Pure_Satanism( শয়তানের উপাসনা )… থেকে।

Vodoo কে Modern Black Magic আখ্যা দেয়া হয়, যেখানে একটি মানুষের পুতুল বানিয়ে সেটা দিয়ে শারীরিক নির্যাতন করা হয়। Vodoo একটি অত্যাধুনিক টেকনিক যার Origin হল Black & White or, Dark & Light উভয় Magic…

#Vodoo একটি Cultural Magic হিসেবে আখ্যা পায়। যখন Satanism এর মূল তত্ত্ব দাড় করানো হয় এভাবে যে, “ Magic is Magic, it owns knowledge & creates your own satisfaction & destiny”

Vodoo হল Vodou ধর্মের একটা অংশ। #Bokor নামের কিছু Priest ঐ দুই প্রকারের Magic এর সংমিশ্রণ ঘটাতে পারেন। এই Dark & Light – Magic এর সংমিশ্রণে প্রথমবার #Zoombie সৃষ্টি হয়।

ঐ Priest-রা বিশেষ বৈশিষ্ট্যের একধরনের #Potion তৈরি করে যাতে একরকমের Poison থাকে, যা স্বাভাবিক ভাবে, হৃদপিণ্ডকে বিশেষ সময়ের জন্য অচল করে দেয়। এবং ঐ মানুষটিকে মৃত বলে মনে হয়।
মৃত ভেবে যখন তাদের জীবন্ত কবর দেয়া হয়, তখনই মূল কাজ শুরু হয়। #Zoombie তৈরির কলাকৌশল।

Bokor নামের সেই Priest মৃতপ্রায় সেই দেহগুলোকে কবর থেকে উঠিয়ে আনে। তাদের দেহে কিছু Drug প্রবেশ করানো হয়, সাধারণত যা ব্যাবহার করে তা হল datura ( ধুতুরা) … তাদেরকে কল্পনা শক্তিকে বাস্তব এবং অবাস্তবের মাঝে বেঁধে ফেলা হয়। ঘুম এবং জাগরণ, মৃত এবং জীবিত এই দুই-এর মাঝে রেখে দেওয়া হয়। এরপর তাদেরকে মন্ত্রে আবদ্ধ করে আদেশ দিয়ে যেকোনো কাজ করিয়ে নেয়া হয়।

কিন্তু কথিত আছে, সবচেয়ে ভয়ঙ্কর যে কাজটি করার চেষ্টা করা হয় সেটা হল, অসংখ্য Zoombie বা Corpse গুলোর সাথে সেই Priest এর আত্তার Communication করার চেষ্টা করা হয়। Priest –রা সেই সম্মিলিত আত্মার বন্ধনের মাদ্ধমে Corpse-দের দেহ থেকে দেহান্তরে চলাচল করতে পারে। সেটা অবশ্য সর্বোচ্চ স্তরের Black Magic..
কিন্তু ছোট ছোট ব্ল্যাক ম্যাজিকের তো হাজারো নমুনা আছে যেগুলো একটি পরিবার কিংবা একজন নির্দিষ্ট কোনও ব্যাক্তিকে তিলতিল করে শেষ করে দিতে পারে!!

এটাই হল ব্ল্যাক ম্যাজিকের অন্ধকার দুনিয়া …
Are you interested?? 😀

#শাওন_ইরিক
কেমন লাগল জানাবেন 🙂

Create a free website or blog at WordPress.com.

Up ↑